Share
Go down
avatar
Admin
Posts : 24
Join date : 2018-05-15
View user profilehttp://minilab.forumotion.com

নতুন ফোনঃ ওয়ানপ্লাস ৬। আরেকটি নচ ফোন।

on Fri May 18, 2018 10:20 pm
18.05.2018 - 22:07:53 - গাজীপুর, বাংলাদেশ। 


ওয়ান প্লাস ৬। ওয়ান প্লাস ৫টি এর পরে আরেকটি সুন্দর ফোন। ওয়ানপ্লাসের জনপ্রিয়তার কারন তূলনামুলক কম দামে ফ্ল্যাগশীপ ফোন ভোক্তাদের হাতে তুলে দেয়ার । তারই ধারাবাহিকতায় তাদের নতুন ঘোষিত ফোন ওয়ানপ্লাস ৬। আজকের টপিকটি ওয়ানপ্লাস ৬ কে নিয়ে, এর প্রিভিউ, কেমন হবে প্রথম ব্যাবহারে তা নিয়ে আজ আলোচনা করব। 

ওয়ান প্লাসের তিনটি কালার। কালো গ্লসি ব্যাকপ্যানেল সহ, প্রায় ম্যাট ব্ল্যাক ও সাদা + হাল্কা গোলাপী বর্ডারে ভ্যারিয়েন্টের। আমার মূলত দেখে ম্যাট ব্ল্যাকটাই ভালো লেগেছে । আর কোনটাই আপনার পছন্দ না হলে তো কাস্টম স্কিন আছেই। 

ওয়ানপ্লাস এর এটি নচওয়ালা ফোন (ধুর -_- ) কিন্তু খুশির খবর হলো আপনি চাইলে এই নচটির কল্লাকাটা করে ফেলতে পারবেন ডিসপ্লে সেটিংস থেকে। 
ওয়ান প্লাস ৬ আনবক্সিং - আনবক্স থেরাপী


এবং এটি কোন সিচুয়েশনে নচকে কেমন করে ব্যাবহার করে তাও সেট করতে পারবেন এই ফোনে। থ্যাংকস ভাই ওয়ানপ্লাস, এই জিনিসটা তোমার থেকে শেখা উচিৎ  Razz


ওয়ানপ্লাস ৬ এর খুটিনাটিঃ 


নচ সহ এর ডিস্প্লে হলো ২২৮০ বাই ১০৮০ এমোলেড (AMOLED) ডিস্প্লে যার ১৯ঃ৯ এসপ্যাক্ট রেশিও। ডিসপ্লে চরম ব্রাইট ও কালারফুল, ও ডিসপ্লে ফুল ভিউ। এর পেছনের গ্লাস প্যানেলটি গরিলা গ্লাস ৫ তারমানে আইফোন ১০ এর মতো এরে নিয়া কোন চিন্তা নাই যে ফাটবে কি ফাটবে না। আপনি চাইলে কভার ব্যাবহার করতে পারবেন আর কভার চাইলে ওয়ানপ্লাস নিজে বানায় সেগুলা নিতে পারেন। 
এর সাথে ড্যাশ চার্জার বা ফাস্ট চার্জার ফ্রি দিয়ে দেয় এর চার্জিং কেবল হলো টাইপ সি। 


এর ভেতরে আছে নতুন স্ন্যাপড্রাগন ৮৪৫ চিপসেট (অক্টাকোর , ২.৮০ গিগাহার্জ) ও এর র‍্যাম দুই ভ্যারিয়েন্টে যথাক্রমে ৬ জিবি ও ৮ জিবি। আর স্টোরেজ পাবেন ৪৬, ১২৮ ও ২৫৬ জিবি ভ্যারিয়েন্টে। 
এর এলটিই বা ফোরজি সেলুলার চিপ গিগাবিটের যা আগের ওয়ানপ্লাসের তুলনায় দ্রুত গতির। ডুয়াল সিম আছে এতে। এর ব্যাটারি হলো ৩৩০০ মিলিএম্পিয়ার। অর্থাৎ আইফোন ১০ থেকে ২০০ মিলিএম্প বেশী?  Wink (হেহে) । 


এর ক্যামেরা গুলা জোস। জানিনা কেন দুটি ক্যামেরারই এপার্চার সেইম আর একটাতে ওয়াইএস নাই কেন? থাক বাদ দিই। এর দুটি ক্যামেরাই সনির আইম্যাক্স সিরিজের , একটি ১৬ মেগাপিক্সেল অন্যটি ২০। দুটিতেই এপার্চার ১.৭। একটিতে অফিশিয়ালি বলা হয়েছে অপ্টিকেল ইমেজ স্ট্যাবিলাইজেশন আছে অন্যটির কিছুই বলা হয়নি।
ক্যামেরায় পাবেন লো লাইটেও ঝকঝকে ছবি, আছে পোর্ট্রেট মোড, আছে ৪কে ৬০ এফপিএস ভিডিও রেকর্ডিং করার ক্ষমতা। আর আছে স্লো মোশন ক্যাপচার করার সুবিধা। কিন্তু ১০৮০ ও ৭২০ পি তে শুধু  Rolling Eyes । 

এর ইউ আই স্টক এন্ড্রয়েড এর কাছাকাছি ও স্মুথ। অক্সিজেন ওএস এর কাস্টমাইজেশনের সুবিধা ও এতে আছে গেমিং মোড। গেমিং মোডে গেম এড করলে ঐ গেম লঞ্চ করার পর ওএস ব্যাকগ্রাউন্ড টাস্ক কমিয়ে দেয়। যার ফলে গেমিং এ সুবিধা পাবেন কিছুটা। আর হ্যা, এটা গেমিং ডিভাইস বলা যায় স্পেক মোতাবেক। ওয়ানপ্লাস তাদের ফ্রন্ট ক্যামেরায় বোকেহ ইফেক্ট আনবে পরের সফটওয়্যার আপডেটে। এতে জেসচারের মাধ্যমে ন্যাভিগেট করার সুবিধা আছে। (আইফোন ১০ জেসচারের মতো প্রায়)। 

ওয়ানপ্লাসের সমস্যা সমুহ ও এর লুকোনো ফিচার সম্বন্ধে দ্রুত পোস্ট হবে।

সোর্সঃ জিএসএম এরেনাআ, এন্ড্রয়েড অথরিটি, ইউটিউব, ওয়ানপ্লাস অফিশিয়াল ওয়েবসাইট, লিনাস টেকটিপস, ওয়ানপ্লাস ফোরাম। 
Back to top
Permissions in this forum:
You cannot reply to topics in this forum